রাতে বাড়িতে বসে টেলিভিশনে খেলা দেখেছেন নাহিদ হাসান সবুজ (২৬) ও তাজিম আহমেদ (১৭)। সম্পর্কে তাঁরা খালাতো ভাই। দুজনই আর্জেন্টিনা দলের সমর্থক। খেলা শেষে ম্যাচ জেতার আনন্দে আরেক বন্ধুসহ মোটরসাইকেল নিয়ে খেতে বের হয়েছিলেন। হোটেল বন্ধ থাকায় ফেরার জন্য রওনা দেন। তবে বাড়ি আর তাঁদের হয়নি। ট্রাকের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাণ হারিয়েছেন নাহিদ ও তাজিম। অপর বন্ধুকে গুরুতর আহত অবস্থায় ভর্তি করা হয়েছে হাসপাতালে।

গতকাল বুধবার দিনগত রাত আড়াইটার দিকে দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার পৌরশহরের নিমতলা এলাকার রহমানিয়া মোড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ট্রাকটির চালক ও চালকের সহকারীকে আটক করেছেন করেছেন ফুলবাড়ী থানা পুলিশ।

নিহত নাহিদ হাসান উপজেলার বাসুদেবপুর গ্রামের অয়েজ উদ্দিনের ছেলে। সম্প্রতি বগুড়া পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট থেকে ডিপ্লোমা শেষ করেছেন তিনি। আর তাজিম আহমেদ শিবনগর ইউনিয়নের বুলবুল আহমেদের ছেলে। সে ঢাকার একটি প্রতিষ্ঠানে পড়াশোনা করছে। গত মঙ্গলবার বিকেলে ঢাকা থেকে ফিরে খালার বাড়িতে উঠেছিল তাজিম। এ ঘটনায় গুরুতর আহত মো. খালিদ (১৮) উত্তর সুজাপুর গ্রামের অহিদুল ইসলামের ছেলে। তাঁকে দিনাজপুরের এম আবদুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
নিহত ব্যক্তিদের ফুফাতো ভাই কামরুজ্জামান বলেন, নাহিদের সঙ্গে তাজিমের খুব ভালো সম্পর্ক। তাজিম ঢাকায় পড়ালেখা করছে। বাড়িতে এসেছে মঙ্গলবার বিকেলে। এসেই আগে খালার বাড়িতে উঠেছে। রাতে খেলা দেখে মোটরসাইকেল নিয়ে বের হয়েছে। প্রথমে নিমতলা মোড়ে ফুডকোর্ট রেস্টুরেন্টে যায়। হোটেল বন্ধ দেখে বাড়িতে ফিরছিল। রহমানিয়া মোড় এলাকায় সামনে আসা ট্রাকের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষে ঘটনাস্থলেই মারা যান দুই ভাই।

ফুলবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশরাফুল ইসলাম বলেন, রাত আড়াইটায় পৌর শহরের নিমতলা মোড়ে চালবোঝাই একটি ট্রাকের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষে এ দুর্ঘটনা ঘটে। মোটরসাইকেলে তিনজন ছিল। খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা গুরুতর আহত অবস্থায় একজনকে হাসপাতালে ভর্তি করান। এ ঘটনায় ট্রাক ও ট্রাকের চালক-চালকের সহকারীকে আটক করা হয়েছে। মামলার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।