আবাসিকে এক চুলা বর্তমান দর ৯৫০ টাকায় ৪০ টাকা বেড়ে হয়েছে ৯৯০ টাকা। দুই চুলা বর্তমান দর ৯৭৫ টাকা, ১০৫ টাকা বেড়ে হয়েছে ১০৮০ টাকা। প্রি-পেইড মিটার ব্যবহারকারী গ্রাহকদের বর্তমান দর ১২.৬০ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ১৮ টাকা। সার উৎপাদনে ব্যবহৃত গ্যাসের দর ঘনমিটার ৪.৪৫ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১৬ টাকা করা হয়েছে।

আজ রবিবার (৫ জুন) বিকেলে ভাচুর্য়াল সংবাদ সম্মেলনে এ দর ঘোষণা করেন বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের (বিইআরসি) ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আবু ফারুক। অন্যদের মধ্য অংশ নেন কমিশনের সদস্য মকবুল ই ইলাহী চৌধুরী, বজলুর রহমান ও কামরুজ্জামান।

গড়ে ২২ দশমিক ৭৮ শতাংশ দাম বাড়ল গ্যাসের। সার উৎপাদনে সবচেয়ে বেশি ২৫৯ শতাংশ, বৃহৎ শিল্পে ১১ দশমিক ৯৬ শতাংশ, বিদ্যুতে ১২ শতাংশ, ক্যাপটিভে ১৫ দশমিক ৫ শতাংশ দাম বাড়ানো হয়েছে।

যানবাহনে ব্যবহৃত গ্যাসের দাম বৃদ্ধি না করায় কিছুটা স্বস্তি প্রকাশ করেছেন অনেকে। তারা বলছেন, এতে অন্তত অরাজকতার আশঙ্কা কমে গেল। যানবাহনে ব্যবহৃত গ্যাসের দাম বৃদ্ধিতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ার শঙ্কা থেকে যায়।