banner


মুহাম্মদ রকিবুল হাসান (রনি)


বাংলাদেশ হস্তশিল্প এসোসিয়েশন কর্তৃক আয়োজিত হলো “ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা সম্মেলন – ২০২১” । দেশী পন্য কিনে হোন ধন্য এই তাইতো দেশীয় পন্য নিয়ে বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা ক্ষুদ্র উদ্যাক্তাদের নিয়ে হয়ে গেলো ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা মিলন মেলা ও সম্মেলন-২০২০ । উক্ত সম্মেলন ও মিলন মেলায় আরো উপস্থিত ছিলেন, এই সম্মেলন এর আহবায়ক বাংলাদেশ হস্ত শিল্প এসোসিয়েশন এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আজিজুর রহমান আজিজ,নিরু শামসুর নাহার,তরুন কুমার ঘোষ,ড.আনোয়ার ফরাজি ইমন,চেয়ারম্যান ফরাজি হসপিটাল,সালমা রহমান আখিঁ কর্ণধার আঁখি কালেকশন, সাবিনা রিনা- একজন নতুন সফল উদ্যোক্তা (পান দোকান)

সাবিনা রিনার নিজের হাতে তৈরি করা পোশাক

, রবিন আহমেদ, সিইও আরিয়ান ডটকম, রুপা আহমেদ- চেয়ারম্যান রুপা বুটিংস,সহ আরো অনেক সফল নারী-পুরুষ উদ্যোক্তা ও বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ।উক্ত সম্মেলন শেষে মেলার বিভিন্ন স্টল পরিদর্শন করেন, ফরাজি হসপিটাল এর চেয়ারাম্যান,ড.আনোয়ার ফরাজি ইমন।সু-প্রাচীন কাল থেকে উপমহাদেশীয় নারীরা কৃষি কাজের পাশাপাশি অবসরে নানান পন্য ঘরে বসেই বানিয়ে থাকেন।এই সকল কাজ তারা শিখতেন পরিবার ও গোষ্ঠির বয়জ্যষ্ঠ নারীদের কাছ থেকে। সময়ের সাথে গ্রাম থেকে শহরে ও শহর থেকে বিদেশে এই সকল পন্যের চাহিদা বেড়েছে।এখনো বাংলাদেশের আনাচে কানাচে অনেক সুক্ষ কাজ করেন এমন অনেক নারী আছেন। যারা তাদের পন্যের সঠিক দাম ও বাজার খুজে পান না। অথচ, বর্তমান বিশ্বে হস্তশিল্প জাত পন্যের চাহিদা বেড়েই চলেছে। এবং দেশের কিছু সেরা ব্রান্ড শপ ছাড়া দেশীয় পন্যের বাজার তেমন সম্প্রসারিত নয়। এছাড়া এই সকল বাজারে উৎপাদক ও ক্রেতার মাঝে থেকে যাচ্ছে মধ্যসত্ত ভোগী ব্যবসায়ী।এছাড়া বর্তমানে হস্তশিল্প ও আগের তুলনায় বহুমুখী ও রূপের পরিবর্তন হয়েছে। এই পরিবর্তনের ফলে হস্তশিল্পের কাচাঁমাল এর পরিবর্তন ও সংকট তৈরী হয়।এই সকল ব্যাপারে সমস্যার জর্জরিত হয়ে এবং শুধুমাত্র গুটি কয়েক আমদানী কারকের হাতে জীম্নি বাজারে হস্তশিল্পের উৎপাদক সকলে আছে।এই অবস্থার পরিত্রান পেতে ২০১৭ সালে জনাব আজিজুর রহমান আজিজ “বাংলাদেশ হস্তশিল্প এসোসিয়েশন” নামে ফেসবুক গ্রুপ প্রতিষ্ঠন করেন। যার পরবর্তিকালে গভঃ রেজি: করা হয়। যা বর্তমানে প্রায় ১ লাখ সদস্যের পরিবার। এখানে আছে কাচাঁমাল সরবরাহ কারী, উৎপাদক, বাজারজাতকারী ও নানান শ্রেনী পেশার মানুষ।বাংলাদেশ হস্ত শিল্প এসোসিয়েশন নিয়মিত ভাবে অফলাইন/ অফলাইন প্রশিক্ষন এর আয়োজন করে আসছে।যার মধ্যে ব্যবসা শুরুর জন্য সফট স্কিল ও হাতে কলমে প্রশিক্ষন দেয়া হয়।পাশাপাশি হস্তশিল্পের বাজার সম্প্রসারনে “মেড বাংলা ডট কম” নামে ওয়েব সাইট সহ সুলভে তৈরী পন্য ও কাচাঁমাল সহজ লভ্য সবার কাছে পৌছে দিতে বাংলা স্টোর, বাংলা ক্রাফট শপ ও বাংলা ডেলিভারি নামে পৃথক প্রতিষ্ঠান স্থাপন করা হয়েছে।এই বৃহৎ পরিবারে দীর্ঘ দিনের দাবী ছিল একত্রে একটি মিলন অনুষ্ঠানের। সেই লক্ষ্যে গত ২রা জানুয়ারী,২০২১ তারিখে বাংলাদেশ হস্তশিল্প এসোসিয়েশন আয়োজন করেছেন “ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা সম্মেলন – ২০২১” । সম্মেলন টি অনুষ্ঠিত হয়েছে মোহম্মদপুর চন্দ্রিমা মডেল টাউন স্মার্ট ব্যম্বু রিভারভিউ রেস্টুরেন্টে।সর্বপরি আজিজুর রহমান আজিজ,বলেন সকল উদ্যাক্তার সুস্বাস্থ্য ও সফলতা কামনা করছেন তিনি।


দৈনিক ‘ভোরের সময়’ এর বিশেষ প্রতিনিধি মুহাম্মাদ রকিবুল হাসান (রনি) মেলা প্রাঙ্গণ ঘিরে একজন ক্ষুদ্র সফল উদ্যোক্তা সাবিনা রিনা বলেন তার স্বপ্ন পূরণের গল্প- পান দোকান কে ঘিরে। প্রায় বিভিন্ন গণমাধ্যম কর্মীর সাক্ষাৎকালে তিনি তার সাফল্যের কথা তুলে ধরেন। গণমাধ্যম সমূহ: উচ্চকণ্ঠ, দৈনিক ভোরের সময়, দৈনিক খবরের আলো, উদ্যোক্তা সমাচার, দুর্নীতির সন্ধানে,  উদ্যোক্তা বার্তা, সময় টেলিভিশন, যমুনা টেলিভিশন, দীপ্ত টেলিভিশন, এশিয়ান টেলিভিশন সহ বিভিন্ন অনলাইন গণমাধ্যম এ তার আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন।

দীপ্ত টিভিতে সাক্ষাৎকার দিচ্ছেন সাবিনা রিনা


সাবিনা রিনা বলেন: আমি  কাজ করছি গজ কাপড় ও

সাবিনা রিনা এর নিজের হাতের সেলাই করা এবং নিজের মন মত করা ডিজাইন থ্রি পিস লেহেঙ্গা টপস ইত্যাদি

ফুড আইটেম নিয়ে।

ঘরোয়া পরিবেশে সাবিনা রিনার নিজের হাতে বানানো সুস্বাদু অন্থন

ছোট কাল থেকেই এসব শখ, সেই শখ আজ আমাকে নিজের কিছু করার অনুপ্রেরণা দেয়।

আমি পারি আমি জানতাম, আমি পারব তা আমি এখন জানালাম। এই ইচ্ছাশক্তি কে কেন্দ্র করে কাজ করে যাচ্ছি সেই ১৯৯৮ সাল থেকে। কোভিড-১৯ এর পর প্রায় এক বছর অনলাইন টাই প্রধান হয়ে উঠেছে।
উচ্চকণ্ঠ কে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন সাবিনা রিনা ও তার মেয়ে


বিয়ের আগে থেকে কাজ শুরু আমার তখনো অনেক বাধা বিপত্তি ছিল। বিয়ের পর ও অনেক বাধা কষ্ট ছিল কাজ করায়, স্বামীর কখনোই সহমত ছিল না আমার কাজে কিন্তু বর্তমানে যুগের সাথে তাল মিলিয়ে আর আমার ইচ্ছের কাছে উনি স্বীকৃতি দেন আমার কাজকে। স্বামীর রাগে বলা নাম টাই আমি আমার ব্র্যান্ডের নাম দিয়েছি (পান দোকান)। উনি সবসময় আমার কাজের সরঞ্জাম কে (পান দোকান) বলতেন। তাই আমিও পান দোকান ফার্ম দিয়ে দেই। বর্তমান এ আমার দুই মেয়েকে সাথে নিয়ে কাজ করছি। কাপড় কেনা থেকে শুরু করে ডিজাইন, কাটিং, সেলাই সহ আমি নিজে করে থাকি।
শূন্য থেকে শুরু করা আমার এই প্রচেষ্টাকে আমি আশাকরি একটা জায়গায় আনবো। আমার করা কাজ ভাল হচ্ছে মেয়ে ও নিজেদের জামা, সালোয়ার কামিজ, বোরখা-হিজাব, আবায়া,হাতের নকশি আর বিভিন্ন কাজ লেহেঙ্গা টপস ইত্যাদি। যে কোন অনুষ্ঠানের কাজ করে থাকি।পাশাপাশি আমার খাবারের ও কাজ আছে সেখানে ফ্রজেন ও বিভিন্ন ধরনের খাবার আছে। আমি চাই দেশি কাপড় ও দেশি খাবার কে তুলে ধরতে “আমরা নারী, আমরাই পারি”।


নারী উদ্যোক্তা হিসেবে আমি যার কাছ থেকে সবচেয়ে বেশি অনুপ্রেরণা পেয়ে আজ এখানে আসতে পেরেছি তার নাম না বললেই নয় তিনি হলেন সালমা রহমান আখিঁ কর্ণধার আঁখি কালেকশন।
এখন আমার একটি পান দোকান এর অনলাইন পেইজ যার পেইজ লিংক হচ্ছে https://www.facebook.com/Paan-Dokan-345180046245984/ 

এবং খাবার আইটেমের একটি অনলাইন পেইজ রয়েছে যার পেইজ লিংক হচ্ছে https://www.facebook.com/Paan-Dokan-Food-and-Desire-102956954961243/ 

যার মাধ্যমে আমি ক্রেতাদের অর্ডারের ভিত্তিতে সেবা প্রদান করে থাকি। 
বিস্তারিত জানতে কল করুন ‘সাবিনা রিনা’ সফল উদ্যোক্তা ‘পান দোকান’ +৮৮ ০১৭১১ ৬৬২৬৬৬

banner