নিজস্ব প্রতিবেদক

কুমিল্লা -৫ আসনের উপ নির্বাচনে নৌকা প্রতিকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বুড়িচংয়ের সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যানের জনসমর্থন ও জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত প্রতিদ্বন্দ্বী মহল গ্রহণযোগ্যতা হারিয়ে নাম সর্বস্ব ফেইক আইডি ও ভুয়া অনলাইন পোর্টালে অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছে বলে অভিযোগ তুলে তাদের কঠোর ভাবে সতর্কতা জানিয়েছেন সাজ্জাদ হোসেন ।

একটি মহল রাজনৈতিক ময়দানে নিজেদের অবস্থানে দেউলিয়া হয়ে এলাকায় জনসমর্থন না থাকায় নানা ভাবে সম্মানহানী করতে অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী সাজ্জাদ হোসেন ও তার কর্মী সমর্থকরা। আসনটি শূন্য ঘোষণার পর থেকে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত বুড়িচং ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রয়াত নেতা আওয়ামীলীগের প্রসিডিয়াম সদস্য আব্দুল মতিন খসরুর স্মরণে মিলাদ মাহফিল ও দেয়া সেই সাথে উক্ত আসনে পরবর্তী নৌকার মাঝি হিসেবে পেতে নেতাকর্মীদের গণমিছিল, পথ সভা ও সমাবেশে সরব রয়েছেন তিনি সমর্থকরা।

২ জুন শূন্য এ আসনটিতে তফসিল ঘোষণার পর সাজ্জাদ হোসেন সমর্থক নেতাকর্মীদের মাঝে দেখা দেয় প্রাণ চাঞ্চল্য। তফসিল ঘোষণার পর গতকাল বিকেলে বুড়িচং ও ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলায় বিভিন্ন এলাকায় গণমিছিল করেন সাজ্জাদ হোসেনের সমর্থনে আওয়ামী লীগ অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা। মরহুম আব্দুল মতিন খসরু’র দীর্ঘ ৪০বছরের রাজনৈতিক সহচর ও কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, জেলা ও উপজেলা আওয়ামী রাজনৈতিক অঙ্গনের সক্রিয় রাজনৈতিক কর্মী সাজ্জাদ হোসেন বলেন, এলাকার রাজনীতিতে, উন্নয়নে এবং এলাকাবাসীর প্রয়োজনে যাদের কোন ভুমিকা নেই, উড়ে এসে জুড়ে বসা মৌসুমি নেতাদের বয়কট করেছে স্থানীয় গণমানুষ ও তৃণমূল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

জনসমর্থন ও জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত মহল অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছে। এলাকায় নিজেদের কোন অবস্থান নেই বুঝতে পেরেই এখন প্রতিপক্ষ হিসেবে আমার বিরুদ্ধে লেগেছেন তারা। আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শের কর্মী শেখ হাসিনার সৈনিক, এসব মিথ্যা অপপ্রচার করে আমাকে দুর্বল করার চিন্তা তাদের ব্যার্থ চেষ্টা মাত্র। এসব ছেড়ে সততার সাথে রাজনৈতিক ভাবে মোকাবিলা করুন সৎ সাহস থাকলে।

আমি সকল কে নিয়ে কাজ করতে চাই, চাই এলাকার উন্নয়নে সকলের সম্মিলিত অংশগ্রহণ। নির্বাচন বা চেয়ারের স্বার্থে সরকার বিরোধীদের সাথে আপোষের রাজনীতি আমার নীতিতে নেই। রাজনৈতিক ভাবে মোকাবিলায় ব্যার্থ হয়ে যারা অপপ্রচার করছেন তারা সতর্ক হয়ে যান এসব ছেড়ে রাজনৈতিক ভাবে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করুন। তিনি আরো বলেন, আমি অন্যদের মত ভেসে আসা নেতা নই, তৃণমূল থেকে উঠে আসা রাজনীতি কর্মী, ছাত্রলীগ, যুবলীগের রাজনীতি করে ইউপি চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানী ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন শেষ করে আসা আওয়ামী লীগের কর্মী।

রাজনৈতিক ভাবে বিরোধীদের ষড়যন্ত্র মোকাবিলা ও তাদের দাঁত ভাঙ্গা জবাব দেয়ার ইতিহাস আমার রয়েছে। কাঁদা ছোড়া ছুড়ি বন্ধ করে নিজের গ্রহণযোগ্যতা তৈরি করুন, মানুষের কল্যাণে কাজ করুন, জনগনই তাদের প্রতিনিধি নির্বাচন করবে”। ৩জুন বৃহস্পতিবার সকালে বুড়িচং উপজেলা সদর এলাকায় সহস্রাধীক নেতাকর্মীর উপস্থিতিতে গনমিছিল ও জনসংযোগে উপস্থিত ছিলেন সাজ্জাদ হোসেন।

এসময় কর্মীসমর্থকদের স্লোগানে স্লোগানে প্রকম্পিত হয় বুড়িচং বাজার ও সদর ইউপি এলাকা। উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রধান কার্যালয় হয়ে উপজেলা সদরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে মিছিলটি। তবে স্বাস্থ্য বিধি উপেক্ষা করে ব্যপক এই জনসমাগমে অনেকের মুখেই দেখা যায়নি মাস্ক।

এদিকে বুড়িচং ব্রাহ্মণপাড়ায় চায়ের দোকান থেকে শুরু করে রাজনৈতিক ময়দান সব জায়গায় আলোচনা সমালোচনার কেন্দ্রবিন্দু একটি কথাই ঘুরছে, আসলেই শেষ পর্যন্ত কে পাচ্ছেন নৌকা? সাবেক আইন মন্ত্রী ও প্রেসিডিয়াম সদস্য এডভোকেট আব্দুল মতিন খসরু’র মৃত্যু পর প্রায় ৩ ডজনের অধিক নেতা এ আসটিতে মনোনয়ন প্রত্যাশা করে প্রচার প্রচারণা চালালেও মুলত তাদের অনেককেই দেখা যায়নি মাঠে কিংবা জনসংযোগে। তফসিল ঘোষণার পর সরব অবস্থান নিয়ে এলকায় প্রচার প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন মাত্র ৩ থেকে ৪ জন।

বাকিরা সোশ্যাল মিডিয়া ও পত্রিকার বিজ্ঞাপনেই সীমাবদ্ধ রয়েছেন। জনসংযোগ কিংবা প্রচারণা মাঠে না থাকলেও আলোচনায় রয়েছেন মরহুম আব্দুল মতিন খসরু’র সহধর্মিণী সেলিমা সোবহান খসরু। শুরু থেকেই স্থানীয় আওয়ামী লীগের তৃণমূলের বেশীরভাগ নেতাকর্মীর সমর্থন ও সহাবস্থান নিয়ে ভোটের মাঠে দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন সাজ্জাদ হোসেন। সমর্থকদের প্রত্যাশা তৃণমূলের এ অঞ্চলের রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের অধিকাংশই জোরালো সমর্থন রয়েছে তার পক্ষে। এছাড়া তফসিল ঘোষণার আগের দিন থেকে হঠাৎই সরব হয়ে ওঠেন আওয়ামী যুবলীগের সহ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক এহতেশামুল হাসান ভুইঁয়া রুমি।

মোটর সাইকেল ও মাইক্রোবাস প্রাইভেট কারের বিশাল শোডাউন নিয়ে তিনিও জনসংযোগ করছেন বিভিন্ন এলাকায়। মাঠে জোরালো অবস্থান না থাকলেও কমবেশি আলোচনায় রয়েছেন বুড়িচং উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট আবুল হাসেম খান, সোনার বাংলা কলেজের প্রিন্সিপাল সেলিম রেজা সৌরভ, ব্যারিস্টার সোহরাব খান চৌধুরী সহ আরো বেশ কয়েকজন। মনোনয়ন প্রত্যাশায় এলাকায় এলাকায় সভা সমাবেশ মিছিল সহ কেন্দ্রীয় ভাবে লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা। এখনো পর্যন্ত দলীয় কোন সীদ্ধান্ত না আসায় উপ নির্বাচন নিয়ে নিরব রয়েছেন বিএনপি নেতারা।

তবে দলীয় নিরবতারর অন্তরালে স্থানীয় বিএনপির দুই নেতার নামও রয়েই নির্বাচনী আলোচনায়। জানা গেছে দলের সীদ্ধান্ত পেলে আঁট ঘাট বেঁধে নির্বাচনের মাঠে নামবেন তারাও। গত ২জুন রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে ইসি সচিব মো হুমায়ুন কবীর খোন্দকার উপ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন। সেসময় সচিব বলেন, আসনগুলোর নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন ১৫ জুন, মনোয়নপত্র বাছাই ১৬ জুন, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন ২৩ জুন, প্রতীক বরাদ্দ ২৪ জুন এবং ভোটগহণ করা হবে আগামী ১৪ জুলাই।

এর আগে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধির কারণে গত ১ মার্চ থেকে সব ধরনের নির্বাচন স্থগিত করেছিল কমিশন। সভায় স্থগিত হয়ে যাওয়া ৩৭১ ইউনিয়ন পরিষদে (ইউপি) ভোটগ্রহণের দিন নির্ধারণ করেছে ইসি। আগামী ২১ জুন ভোটের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। একইদিন ১১টি পৌরসভা ও লক্ষীপুর-২ আসনেও উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। গত ১১ এপ্রিল এসব ইউপিতে ভোটগ্রহণের তারিখ নির্ধারিত ছিল। তবে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার কারণে গত ১ মার্চ থেকে সব ধরনের নির্বাচন স্থগিত করে কমিশন।

banner