নির্ধারিত সময়ের মধ্যে হলো না গোল। অতিরিক্ত ৩০ মিনিটেও জালের ঠিকানা কেউ খুঁজে না পাওয়ায় ম্যাচ গড়াল টাইব্রেকারে। সেখানে রোমাঞ্চকর এক লড়াই শেষে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে হারিয়ে ইউরোপা লিগ জিতে ইতিহাস গড়ল ভিয়ারিয়াল।

বুধবার রাতে প্রতিযোগিতার ফাইনাল ম্যাচটি নির্ধারিত সময়ে ১-১ সমতা থাকায় অতিরিক্ত সময়ে গড়ায়। সেখানেও সমতা থাকলে খেলা গড়ায় টাইব্রেকারে। 

যেখানে ১১-১০ ব্যবধানে জয় তুলে নিয়ে চ্যাম্পিয়নের মুকুট পড়ে ভিয়ারিয়াল।

স্পেনের ক্লাবটি নিজেদেরে ৯৮ বছরের ক্লাব ইতিহাসে এই প্রথম কোনো বড় শিরোপা জিতল।

এদিন উনাই এমেরির দলই প্রথমে লিড নেয়। ম্যাচের ২৯ মিনিটে জেরার্ত মোরেনো গোল করলে এগিয়ে যায় ভিয়ারিয়াল। প্রথমার্ধে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় তারা। তবে দ্বিতীয়ার্ধের ৫৫ মিনিটে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের পক্ষে সমতা ফেরান এদিনসন কাভানি।

এরপর নির্ধারিত সময়ে ও অতিরিক্ত সময়েও কোনো দল গোল না পেলে পেনাল্টিতে গড়ায় ম্যাচ। দুই দলের এই পেনাল্টির লড়াইটিকে মহাকাব্যিক পেনাল্টিই বলা চলে। যেখানে একে একে দুই দলেরই ১০ জন করে খেলোয়াড় স্পট কিক নেন এবং সবাই গোল করেন।

১১ নম্বরে শটে গিয়ে আটকে যায় ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। তখন শুধু দুই দলের গোলরক্ষকই শট নেওয়া বাকি ছিল। স্নায়ুর চূড়ান্ত লড়াইয়ে ভিয়ারিয়াল গোলকিপার গেরোনিমো রুল্লি সফল হলেও ইউনাইটেড গোলরক্ষক দে হেয়া গোল করতে ব্যর্থ হন। হেয়ার শট রুখে দেন গেরোনিমো রুল্লিই। আর তাতেই ভিয়ারিয়াল মাতে ইতিহাস গড়ার আনন্দে।

banner