banner

অনলাইন ডেস্ক

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত এবং মৃত্যুর সংখ্যা বাড়তে থাকায় গাজীপুরের কয়েকটি পোশাক কারখানার শ্রমিকদের নিবন্ধন ছাড়াই করোনার ভ্যাকসিন দেওয়া শুরু হয়েছে। কোনো নিবন্ধন ছাড়াই শুধুমাত্র জাতীয় পরিচয়পত্র দেখিয়ে ১২ হাজার পোশাক শ্রমিককে দেয়া হচ্ছে এ ভ্যাকসিন।

আজ রবিবার (১৮ জুলাই) সকালে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের কোনাবাড়ী এলাকায় তুসুকা ডেনিম কারখানার শ্রমিকদের নিবন্ধন ছাড়াই করোনার টিকা প্রয়োগ কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়।প্রাথমিকভাবে ৪টি কারখানার প্রায় ১২ হাজার শ্রমিকের মধ্যে এ টিকা দেওয়া হচ্ছে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. জাহাঙ্গীর আলম।

গাজীপুরের সিভিল সার্জন ডা. মো. খায়রুজ্জামানের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন গাজীপুরের জেলা প্রশাসক এসএম তরিকুল ইসলাম, গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার জাকির হাসান, বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান, ভাইস প্রেসিডেন্ট নাসির উদ্দিন, তুসুকা ডেনিম কারখানার পরিচালক ফিরোজ আহমেদ, হেড অব কান্ট্রি, মার্কস অ্যান্ড স্পেন্সার, বাংলাদেশ স্বপ্না ভৌমিক, কান্ট্রি ডিরেক্টর, কেয়ার বাংলাদেশ রামেশ সিংসহ আরও অনেকে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। টিকা নিলেও সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। পর্যায়ক্রমে সব পোশাক কারখানার শ্রমিকদের টিকা দেওয়া হবে। শ্রমিকদের দ্রুততার সঙ্গে টিকার আওতায় আনতেই নিবন্ধন ছাড়াই টিকা দেওয়া হবে। তবে, টিকা নেওয়ার সময় জাতীয় পরিচয়পত্র সঙ্গে আনতে হবে। সিভিল সার্জন মো. খায়রুজ্জামান বলেন, সরকারি সিদ্ধান্তে গাজীপুরের পোশাক কারখানার

শ্রমিকদের করোনার টিকা দেওয়া হচ্ছে। এজন্য কারখানাগুলো থেকে তালিকা চাওয়া হয়েছিল। ২৫ লাখ শ্রমিকের তালিকা পাওয়া গেছে। গাজীপুরে একসঙ্গে ৪টি পোশাক কারখানায় শ্রমিকদের এনআইডি নিয়ে টিকাদান শুরু হয়েছে। কারখানাগুলো হচ্ছে গাজীপুরের লক্ষ্মীপুরা এলাকার স্পেরো অ্যাপারেলস লিমিটেড, কোনাবাড়ী এলাকায় তুসুকা গ্রুপের দুটি ও ভোগড়া এলাকার রোজভ্যালী।

banner