সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার, সাইদুর রহমান:

ফল আর্মি ওয়ার্ম পোকাটির শূককীটের মাথায় উল্টো ইংরেজি “Y” অক্ষরের মত দাগ থাকে এবং শেষের দিকে বর্গাকারে ৪টি কালো বিন্দু সজ্জিত থাকে। মথের সামনের ডানায় আবছা কালো লাইন যুক্ত কিডনির মত সাদা দাগ থাকে, ডগার দিকের কালো দাগগুলি একটু আবছা ধরনের ও সরু হয়। ডানার রঙ ধূসর বাদামী। আক্রমণের প্রকৃতি হল কচি পাতা চিবিয়ে খেয়ে ফেলা। সাধারণত কান্ড ও পাতার সংযোগস্থলে লুকিয়ে থাকে। পাতায় ছিদ্র ও মলের উপস্থিতি দেখে আক্রমণকে চেনা যায়। পোকাটি সর্বাধিক ৫% ক্ষতি করতে পারে ২১ দিন পর্যন্ত ও ১০% ক্ষতি করতে পারে চারা বের হবার ৪০ দিন পর্যন্ত।

নিয়ন্ত্রনবিধির শুরুতেই তীক্ষ্ণ নজরদারি ও মাঠ পরিদর্শন বিশেষ জরুরি। স্পেডোপটেরা ফ্রুজিপারডা ফেরোমোন ফাঁদ বিঘাতে চারটি করে বসিয়ে উপযুক্ত নিরীক্ষণের মাধ্যমে পোকার চিহ্নিতকরণ বিশেষ প্রয়োজনীয়। আক্রমণ ঠেকাতে বিঘা প্রতি ৪ টি পাখি বসার জায়গা ব্যবস্থা করতে হবে। আক্রমণ চিহ্নিত হলে সূর্যাস্তের সময় শূককীটদের ধরে নষ্ট করে ফেলতে হবে। নিউক্লিয়ার পলিহেড্রসিস ভাইরাস প্রথমে জমিতে স্প্রে করে তারাপর ল্যাদা সংগ্রহ করে পানির সাথে মিশিয়ে স্প্রে করলে জৈবিক পদ্ধতিতে নিয়ন্ত্রণ করা যাবে।

আক্রমণের মাত্রা বেশি হলে রাসায়নিক কীটনাশক স্প্রে করা বিশেষ প্রয়োজনীয়। ক্লোরোপাইরিফস+সাইপারমেথ্রিন, এমামেকটিন বেনজোয়েট, ক্লোরানিলিপ্রোল, ফিপ্রোনিল + থায়ামেথোক্সাম গ্রুপের কীনাশক প্রয়োগ করুন।
আরও অধিক পরামর্শের জন্য আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন ৷

মন্তব্য করুন

আপনার মতামত লিখুন
Please enter your name here